৬,৬,৬,৬,৬,… মাথায় নেই বাবার ছায়া, মা বাস কন্ডাক্টর, ডাবল সেঞ্চুরি করে টিম ইন্ডিয়ার দরজায় কড়া নাড়লেন ছেলে

বলা হয়ে থাকে, যখন কিছু করার ইচ্ছা থাকে, তখন সমস্যাও এক সময় মরে যায়। সমস্ত সমস্যাকে পিছনে ফেলে এই ক্রিকেটাররা আগামী দিনে টিম ইন্ডিয়ার হয়ে নিজেদের উপস্থিতি জানাচ্ছেন।

যেখানে তার মা তার জন্য তার রুটিন বলি দিয়েছেন। যেখানে ছেলে মাঠে ব্যাট হাতে আগুন বর্ষণ করে, সেখানে মা সারাদিন বাসে টিকিট কাটে।

ছেলের স্বপ্ন পূরণের জন্য মা প্রতিটি ত্যাগের জন্য প্রস্তুত এবং এর জন্য অথর্ব আনকোলেকরের মাও ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন। যেখানে অথরবের চাকরি পাওয়া উচিত ছিল,

সেখানে অথরবের বদলে তার মা চাকরি পেয়েছেন। তোমার স্বপ্নে আঘাত করো, তাই ছেলে স্বপ্ন দেখতে পারে। এখন তার একই সংগ্রামের ফল মাঠে দৃশ্যমান।

এবার অথরবের ব্যাট বজ্রপাত। সিকে নাইডুর অধীনে মুম্বাইয়ের অধিনায়কত্ব করার সময় তিনি ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন। হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে ২১১ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলেছিলেন অথরব। এ সময় তিনি মারেন ১৫টি চার ও ১১টি ছক্কা।

অথর্ব (অথর্ব আনকোলেকর) ম্যাচ চলাকালীন মা তার বন্ধুদের স্কোর জিজ্ঞাসা করতে থাকেন।অথর্বকে একা মা লালনপালন করেছেন। 2010 সালে অথর্ব-এর বাবা মারা যান।

এরপর স্বামীর জায়গায় সরকারি বাস সার্ভিসে কন্ডাক্টরের চাকরি পান মা বৈদেহী। অথর্ব যখন ক্রিকেট খেলা শুরু করেন, তখন তার আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল না।

এমন পরিস্থিতিতে ১৫ কিলোমিটার দূরের বাস থেকে ক্রিকেট কিট নিয়ে অনুশীলনে যেতেন। অনেক সময়, ভারী কিটের কারণে, অথর্ব (অথর্ব আনকোলেকর) এমনকি খেলা ছেড়ে দেওয়ার কথাও ভাবতেন, কিন্তু তার মা তাকে উত্সাহিত করেছিলেন এবং আজ সে তার স্বপ্ন পূরণের যাত্রা শুরু করেছে।

অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়ায় অথর্ব আনকোলেকারের ব্যাট দরকার
অথরভকেও বল নিয়ে ক্ষোভ তৈরি করতে দেখা গেছে। ২০১৯ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে অনূর্ধ্ব ১৯ এশিয়া কাপের ফাইনাল যে কেউ ভুলতে পারে, যেখানে তিনি ৫ উইকেট নিয়ে ভারতকে ৭ বারের মতো চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *